বিশেষ সংবাদ:

শ্বাসরুদ্ধকর ম্যাচে রংপুরের কাছে ঢাকার হার

Logoআপডেট: বুধবার, ২২ নভেম্বর, ২০১৭

এবি ক্রীড়া প্রতিবেদক


বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লীগের (বিপিএল) ২৪তম ম্যাচে সাকিব আল হাসানের ঢাকা ডায়নামাইটসকে ৩ রানের ব্যবধানে নাটকীয়ভাবে হারিয়েছে মাশরাফি বিন মর্তুজার রংপুর রাইডার্স।

 

এর আগে এই হাইভোল্টেজ ম্যাচে টসে জিতে ফিল্ডিংয়ের সিদ্ধান্ত নেন ডাইনামাইটস অধিনায়ক সাকিব আল হাসান।  প্রথমে ব্যাট করে ১৪২ রানে অল আউট হয় রংপুর রাইডার্স।

 


জবাবে ব্যাটিংয়ে নেমে শুরুতেই নারিনের উইকেট হারায় ঢাকা। নারিন কোনো রান না করেই মাশরাফির বলে মিথুনের হাতে ক্যাচ দিয়ে আউট হয়েছেন। তারপর ১১ রান করা সাকিবকে বোল্ড করে সাজঘরে পাঠিয়েছেন সোহাগ গাজী। এলভিন লুইসকে ব্যক্তিগত ২৮ রানে লেগ বিফোরের ফাঁদে ফেলে নিজের দ্বিতীয় শিকার তুলে নেন সোহাগ গাজী। ২৯ রান করা জহুরুল ইসলামকে বোল্ড করে নিজের দ্বিতীয় শিকার বানিয়েছেন মাশরাফি। তারপর মোসাদ্দেক ২ রান করে রান আউটের শিকার হয়ে ফিরেছেন সাজঘরে।তারপর শহীদ আফ্রিদি ও মেহেদী মারুফের ব্যাটে ঢাকা জয়ের স্বপ্ন দেখলেও ২১ রান করা আফ্রিদিকে বোল্ড করে আউট করেছেন রুবেল হোসেন। মেহেদী মারুফও ব্যক্তিগত ১৫ রানে রুবেলের লেগ বিফোরের ফাঁদে পড়েছেন। শেষ দিকে নাদিফ চৌধুরীকে রবি বোপারার ক্যাচ বানিয়ে আউট করেছেন লাসিথ মালিঙ্গা। তারপর স্নায়ুচাপের শেষ ওভারে ১২ রান করা কাইরন পোলার্ডকে বোল্ড করেছেন থিসারা পেরেরা। শেষ বলে আবু হায়দার রনিকে বোল্ড করলে নাটকীয় ভাবে ৩ রানের জয় পায় মাশরাফির রংপুর। এর আগে টস হেরে প্রথমে ব্যাট করতে নেমে শুরুটাও ভালো করে রংপুর রাইডার্স। ব্রেন্ডন ম্যাককালামের সঙ্গে গেইলের ওপেনিং জুটিতে আসে ৩৬ রান। সেখানে ম্যাককালামের অবদান মাত্র ৬ রান। এরপর মোহাম্মদ মিঠুনকে নিয়ে জুটি গড়েন গেইল। অষ্টম ওভারের প্রথম বলে আউট হন এই ক্যারিবিয়ান। দলের রান তখন ৭২। গেইলের ৫১। মাত্র ২৮ বলে ৫টি চার ও ৪টি ছক্কার সাহায্যে এ রান করেন তিনি। তবে এদিন শুরুতেই ফিরে যেতে পারতেন গেইল। ব্যক্তিগত ৭ রানে সুনিল নারিনের বলে আবু হায়দার রনির হাতে জীবন পান।

 

এরপরই আগ্রাসী হয়ে ওঠেন তিনি। যদিও থেমেছেন সেই রনির হাতেই ক্যাচ দিয়ে। তবে গেইল আউট হতেই শ্লথ হতে থাকে রংপুরের রানের গতি। পরের পাঁচ ওভারে বাউন্ডারি আসে মাত্র ২টি। তখন শাহরিয়ার নাফীসের বিদায়ে রানের গতি বাড়াতে মাঠে নামেন অধিনায়ক মাশরাফি। ১০ বলে ১৫ রান করে সেই চাওয়াটা কিছু পূরণ করেন। তবে মাশরাফির বিদায়ের পর আবারো ধীর গতিতে ব্যাট করতে থাকে দলটি। উল্টো পরের ওভারে সাকিবের শিকার হন মিঠুনও। ২২ রান করে ফেরেন মিঠুন। এরপর ১টি চার ও ১টি ছক্কায় ৯ বলে ১৫ রান করেছিলেন থিসারা পেরেরা।

 

তবে ইংলিশ ব্যাটসম্যান রবি বোপারা ও জিয়াউর রহমানের নেতিবাচক ব্যাটিংয়ে কোণঠাসা হয়ে পরে দলটি। শেষ দিকে ব্যাটিং করে ১৬ বলে ১২ রান করেন বোপারা। আর ৯ বলে ৪ রান করেন জিয়া। শেষ পর্যন্ত এক বল বাকি থাকতে ১৪২ রানে অলআউট হয়ে যায় দলটি। ইনিংসের শেষ ওভারে ৪টি উইকেট পড়েছে। একটি রান আউট। পরের ৪ বলে ৩ উইকেট নিয়েছে সাকিব। শেষ পর্যন্ত মাত্র ১৬ রানের খরচায় ৫ উইকেট লাভ করেন এই অলরাউন্ডার। খেলা শেষে ম্যাচ সেরা হয়েছেন ক্রিস গেইল।