বিশেষ সংবাদ:

আবারও সিডনির মঞ্চে মুক্তিযুদ্ধের নাটক ‘লিভ মি অ্যালন’

Logoআপডেট: সোমবার, ১২ নভেম্বর, ২০১৮

এবি ডেস্ক
দীর্ঘ ষোলো বছর পর সিডনিতে দিনব্যাপী বাংলা সংস্কৃতি উৎসবে মঞ্চস্থ হয়েছে বাংলাদেশের মহান মুক্তিযুদ্ধ নিয়ে নির্মিত মঞ্চনাটক ‘লিভ মি অ্যালন’। ১০ নভেম্বর স্থানীয় সময় রাত সোয়া আটটায় সিডনির ওয়াইলিপার্কের অ্যাম্ফি থিয়েটারে নাটকটি প্রদর্শিত হয়।

জন মার্টিন রচিত ও নির্দেশিত এ নাটকটি এর আগে ২০০২ সালে সিডনিতে মঞ্চায়িত হয়েছিল। সিডনিতে পঞ্চমবারের মতো নাটকটি পরিবেশন করে অস্টেলিয়ার সিডনি প্রবাসী বাংলাদেশিদের গড়া থিয়েটার সংগঠন আলাপন।

নাটক প্রসঙ্গে নাট্যজন জন মার্টিন বলেন, ‘সিডনিতে ‘‘লিভ মি অ্যালন’’ আমাদের প্রথম মঞ্চনাটক। মুক্তিযুদ্ধ কখনো পুরানো হয় না। মুক্তিযুদ্ধের গল্পগুলো এখনো মনের মাঝে শীতল স্পর্শ ছুঁয়ে দেয়। যুদ্ধ কেবল মাঠে হয়নি। শুধু বন্দুকে আর গোলায় যুদ্ধের দামামা বাজেনি। যুদ্ধ হয়েছে মনে এবং মগজে।
যুদ্ধে মানুষ প্রিয়জনদের হারিয়েছে। স্বাধীনতা আর মুক্তিযুদ্ধের দ্বন্দ্ব নিয়ে বেড়ে উঠেছে একটি প্রজন্ম। সেই দ্বন্দ্ব ওদের মগজে বিদ্বেষ জমিয়েছে। অথচ ওদের সেই হতাশার গল্প আমরা শুনিনি। মুক্তিযুদ্ধহীন এক ইতিহাস বিশ্বাস করে, বড় হতে হতে ওদের সাথে কখন যে অনেক দূরত্ব তৈরি হয়ে গেছে সেই বিশ্বাস ও বিস্ময়ের প্রশ্নগুলোই এই নাটকের প্রতিপাদ্য।’

মঞ্চনাটকটিতে অভিনয় করেছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের টেলিভিশন, চলচ্চিত্র ও ফটোগ্রাফি বিভাগের খণ্ডকালীন শিক্ষক এবং ঢাকা পদাতিকের অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা সদস্য গোলাম মোস্তফা। মঞ্চনাটকটির কাহিনি প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘নাটকটি একটি মুক্তিযোদ্ধার মেয়েকে কেন্দ্র করে আবৃত। আমরা যখনি এ নাটকটি করি তখনই আপ্লুত হয়ে পড়ি। মনে হয় যেন নিজের গল্পই বলে যাচ্ছি।’
‘লিভ মি অ্যালন’-এর এবারের মঞ্চায়নকে ঘিরে বাংলাদেশের নাট্যজগতের একসময়কার প্রিয়মুখ নাট্যশিল্পী মৌসুমি মার্টিন দীর্ঘদিন পর আবারও মঞ্চে এসেছেন। এ নাটকের কেন্দ্রীয় চরিত্রে অভিনয় করেছেন তিনি। নাটকে গোলাম মোস্তফা ও মৌসুমি মার্টিনের সঙ্গে এই প্রজন্মের মীর হোসেন, মিতুল হক, অদিতি শ্রেয়শী বড়ুয়াও অভিনয়ে অনবদ্য স্বাক্ষর রেখেছেন।

 

প্রদর্শনী শেষে আয়োজকরা জানান, আমরা আপ্লুত। সিডনিতে মহিলা সমিতির পরিবেশ তৈরি করতে যে ভালোবাসা আমাদের প্রয়োজন আমরা সেটা পেয়েছি। শত প্রতিবন্ধকতা কাটিয়ে নাটকটির নতুন মঞ্চায়ন সিডনিতে মঞ্চ নাটকের পরিচ্ছন্ন পরিবেশ ফিরাতে সহায়ক ভূমিকা রাখবে বলে মনে করছেন এখানকার নাটকপ্রেমীরা।
‘সময়ের দূরত্বে মুক্তিযুদ্ধ ও অসাম্প্রদায়িক চেতনা এখনো মলিন হয়নি, হতে পারে না।’ নতুন প্রজন্মের মাঝে এ মূল্যবোধ জাগাতে আলাপন থিয়েটারের বিশেষ এই উদ্যোগ বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা।

উল্লেখ্য, নাটকটির পর পর আরো বেশ কয়েকটি প্রদর্শনী করার পরিকল্পনা ও প্রস্তুতি চলছে বলে আলাপন থিয়েটারের পক্ষ থেকে জানিয়েছেন জন মার্টিন ও লাভলি মোস্তফা।