বিশেষ সংবাদ:

রুমা মোদক পাচ্ছেন ‘দেশ পাণ্ডুলিপি পুরস্কার’

Logoআপডেট: রবিবার, ১১ নভেম্বর, ২০১৮

এবি প্রতিবেদক

সাহিত্যিক রুমা মোদক পাচ্ছেন ‘দেশ পাণ্ডুলিপি পুরস্কার ২০১৮’। সৃজনশীল প্রকাশনা সংস্থা দেশ পাবলিকেশন্স ৫ম বারের মতো এবার ‘দেশ পাণ্ডুলিপি পুরস্কার ২০১৮’ প্রদান করার লক্ষ্যে গত সেপ্টেম্বরে পাণ্ডুলিপি আহ্বান করেন।

গত মাসের ১০ তারিখ পর্যন্ত মোট ১৭১ টি পাণ্ডুলিপি জমা পড়ে। এর মধ্য থেকে জুরিবোর্ডের প্রাথমিক নির্বাচনের ভিত্তিতে সংক্ষিপ্ত তালিকা প্রকাশ করা হয়। এর মধ্য থেকে নাটকে মনোনীত ব্যক্তির নাম নাম ঘোষণা করা হয়। ‘অন্তর্গত’ নামের মঞ্চনাটকের পাণ্ডুলিপির জন্য রুমা মোদককে এ পুরস্কারে ভূষিত করা হচ্ছে বলে জানা গেছে।

রুমা মোদক, কবি ও সাহিত্যিক। জন্ম- হবিগঞ্জ। জেলা শহর থেকে প্রকাশিত সংকলনগুলোতে লেখালেখির মাধ্যমেই হাতেখড়ি। শুরুটা অন্য অনেকের মতোই কবিতা দিয়ে। ২০০০ সালে প্রকাশিত হয় প্রথম কাব্যগ্রন্থ ‘নির্বিশঙ্ক অভিলাষ’। এরপর ধীরে ধীরে জড়িয়ে পড়েন মঞ্চনাটকে।

একের পর এক রচনা করেন কমলাবতীর পালা, বিভাজন, জ্যোতিসংহিতাসহ বেশ কিছু নাটক। এ পর্যন্ত তার রচিত মঞ্চনাটকের সংখ্যা ২০টিরও অধিক। যার প্রায় সবকটি সফলতার সাথে মঞ্চস্থ হয়েছে এবং ব্যাপক দর্শকপ্রিয়তা পেয়েছে।

মঞ্চনাটক রচনার পাশাপাশি গল্প লেখায়ও তিনি স্বকীয় একটা অবস্থান তৈরি করতে সমর্থ হয়েছেন। জীবন ও জগতকে দেখার বহুমাত্রিক অভিজ্ঞতার উৎসরণ ঘটেছে তার ছোটগল্প সংকলন গুলোতে। এ পর্যন্ত তার প্রকাশিত গ্রন্থের সংখ্যা ৬টি। একটি কবিতা, তিনটি গল্পগ্রন্থ, একটি নাটক ও একটি মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস সংক্রান্ত গ্রন্থ।

গল্প লেখার স্বীকৃতি স্বরূপ পেয়েছেন বৈশাখী টিভি সেরা গল্পকারের পুরস্কার, ফেয়ার এন্ড লাভলী সেরা ভালোবাসার গল্প পুরস্কার। মঞ্চনাটকে অবদানের জন্য ২০১৪ সালে পেয়েছেন তনুশ্রী পদক, ২০১৭ সালে মোহম্মদ জাকারিয়া স্মৃতি পদক, দিক থিয়েটার সম্মাননা পুরস্কারসহ নানা সম্মাননায় ভূষিত হয়েছেন তিনি। বর্তমানে সক্রিয় আছেন বিশ্বব্যাপী  বাংলা ভাষার নানা পত্র-পত্রিকা, লিটলম্যাগ ও অন্তর্জাল সাহিত্য পোর্টালে লেখালেখিতে ও সার্বক্ষণিক মঞ্চের কাজে।

জীবন সংকেত নাট্যগোষ্ঠী, হবিগঞ্জের সক্রিয় কর্মী তিনি। মঞ্চে অভিনয় করেন থিয়েটারকে ভালোবেসে। রুমা মোদক জীবনসঙ্গী অনিরুদ্ধ কুমার ধর, পুত্র অভিজ্ঞান ধর কাব্য  ও কন্যা অদ্বিতীয়া ধর পদ্যকে নিয়ে বাস করেন হবিগঞ্জে। সাহিত্য ও সংস্কৃতি চর্চায় সৃজন-মননের অধম্য সাধনাই এখন তার একমাত্র আরাধ্য।

‘দেশ পাণ্ডুলিপি পুরস্কার’ প্রসঙ্গে দেশ পাবলিকেশন্সের ব্যবস্থাপনা পরিচালক অচিন্ত্য চয়ন জানান, ‘গত পাঁচ বছরের মতো এবারও ‘‘চেতনায় ঐতিহ্য’’ শ্লোগানকে ধারণ করে আমরা মানসম্মত পাণ্ডুলিপিকে পুরস্কৃত করার প্রয়াস রাখছি। এ বছর তরুণরা বেশ এগিয়ে আছে। আশা করছি, চূড়ান্ত তালিকায় তরুণদের নামই বেশি আসবে। প্রথমবারের মতো গণমাধ্যমে পুরস্কার প্রদান এবং পুরস্কার হিসাবে ক্রেস্ট ও সম্মাননা সনদের সঙ্গে প্রথমবারের মতো নগদ অর্থমূল্য প্রদান করা হবে। মনোনীত পাণ্ডুলিপি একুশে গ্রন্থমেলা ২০১৯-এ গ্রন্থ আকারে প্রকাশ করা হবে।’