বিশেষ সংবাদ:

সংবৃতার উদ্যোগে ‘আবৃত্তি কর্মশালা’

Logoআপডেট: শনিবার, ০৬ অক্টোবর, ২০১৮

এবি প্রতিবেদক

শ্রোতার সম্মুখে কোনো কথা, কবিতা বা বক্তব্য আকর্ষনীয়ভাবে উপস্থাপন করাটা একটি শিল্প। আর কণ্ঠস্বরে যথাযথ প্রয়োগ ও নিয়ন্ত্রণের মাধ্যমে সংশ্লিষ্ট ভাষায় প্রমিত উচ্চারণ অক্ষুণ্ণ রেখে বিষয়ে ধারণকৃত অনুভূতি, আবেগ, ভাব, গতি, বিরাম, ছন্দ ইত্যাদির সমন্বিত ও ব্যঞ্জনার প্রকাশই আবৃত্তি। সাধারণ অর্থে আবৃত্তি হলো ‘কবিতা’ অনুশীলনের দ্বারা প্রকাশের সম্পূর্ণতায় ও সুক্ষতায় পৌঁছানো এক শ্রুতিশিল্প।

বৰ্তমান আবৃত্তি একটি জনপ্ৰিয় ও শক্তিশালী কলা বা শিল্পমাধ্যম হিসেবে স্বীকৃত। শুধু তাই নয়, এই আবৃত্তি প্রতিবাদের এক শৈল্পিক হাতিয়ারও বটে। বাঙালির সামাজিক, রাজনৈতিক তথা সকল সাংস্কৃতিক আন্দোলনে আবৃত্তি শিল্পটি রেখে চলেছে অসামান্য অবদান। স্বাধীনতা পরবর্তী সময়ে এদেশে আবৃত্তিচর্চা বেশ প্রসারিত হয়েছে। বর্তমানে ঢাকাসহ সারাদেশে বহু আবৃত্তি সংগঠন সক্রিয়ভাবে তাদের এই শিল্পবিপ্লব চালিয়ে যাচ্ছে।

 

রাজধানীর অন্যতম স্বনামধন্য আবৃত্তি সংগঠন সংবৃতা। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের টিএসসিভিত্তিক আবৃত্তি সংগঠন সংবৃতা আবৃত্তি চর্চা ও বিকাশ কেন্দ্রে নিয়মিত কর্মশালার ধারাবাহিকতায় অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে ৩৫তম আবর্তন। এ লক্ষে এরই মধ্যে শুরু হয়েছে ভর্তি কার্যক্রম চলছে।

এইচএসসি উত্তীর্ণ যেকোনো ব্যক্তি আগামী ২ নভেম্বর পর্যন্ত প্রতিদিন সকাল ১০টা থেকে সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত টিএসসির সংবৃতা কর্নার অথবা www.shongbrita.com ওয়েবসাইট থেকে ভর্তি ফরম সংগ্রহ করতে পারবেন। একারের কর্মশালায়ও প্রমিত উচ্চারণ, উপস্থাপনা ও সাংগঠনিক আবৃত্তি চর্চার ওপর প্রশিক্ষণ দেবেন দেশ বরেণ্য বাচিকশিল্পী ও আবৃত্তি প্রশিক্ষকগণ।

 টিএসসির মুনীর চৌধুরী সেমিনার হলে চার মাসব্যাপী এ কর্মশালার উদ্বোধনী ক্লাস শুরু হবে আগামী ৯ নভেম্বর সকাল ৯টায়। এবারের আবর্তনে অংশ নেয়াসহ এ সংক্রান্ত যেকোনো প্রয়োজনে ০১৭১১১৮৯৩৫৯ অথবা ০১৭৩২৩৪৩৪৬১ নম্বরে যোগাযোগ করার জন্য সংবৃতার পক্ষ থেকে আহ্বান জানানো হয়েছে।