বিশেষ সংবাদ:

অস্কারের টিকিট পেল ‘ভিলেজ রকস্টারস’

Logoআপডেট: শনিবার, ২২ সেপ্টেম্বর, ২০১৮

এবি ডেস্ক
জাতীয় পুরস্কার জয়ী রিমা দাসের ছবি ‘ভিলেজ রকস্টারস’ ভারত থেকে পেল অস্কারে লড়াইয়ের টিকিট। ভারতীয় চলচ্চিত্র হিসেবে অস্কারে পাঠানোর জন্য এই ছবিটিকে মনোনীত করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন ফিল্ম ফেডারেশন অফ ইন্ডিয়া নিয়োজিত অস্কার এনট্রি সিলেকশন কমিটির প্রধান কন্নড় পরিচালক এসভি রাজেন্দ্র সিং বাবু।

এরই মধ্য দিয়ে যেন অসম্ভবকে সম্ভব করে ফেললেন ভারতের আসামের নতুন চলচ্চিত্র নির্মাতা রীমা দাস। দীর্ঘ চার বছর পরিশ্রম করে একটি ছবি তিনি নির্মাণ করেন রিমা দাস। তিনি উন্নত প্রযুক্তির ক্যামেরা রেখে হাতে চালিত ক্যামেরায় ছবিটি নির্মিানের মধ্য দিয়ে সবাইকে তাক লাগিয়ে দিয়েছেন।
এবার দেশের নামকরা সব পরিচালক-প্রযোজকদের অবাক করে অস্কারে মনোনয়ন পেয়েছে ছবিটি। এটি আসামের আঞ্চলিক ভাষায় নির্মিত ছবি হলেও অস্কারে লড়বে বিদেশী ভাষার সিনেমা হিসেবে।

অস্কারের পাঠানোর মনোনয়নে জমা হয়েছিল ‘রাজি’, ‘অক্টোবর’, ‘লাভ সোনিয়া’, ‘পদ্মাবত’সহ আরও বেশকিছু ছবি। এর মধ্যে থেকে অসমিয়া ছবি ‘ভিলেজ রকস্টারস’কে ভারত থেকে অস্কারে পাঠানোর জন্য মনোনীত করা হয়। এবছরই ৬৫তম ন্যাশানাল ফিল্ম অ্যাওয়ার্ডের মঞ্চে সেরা ফিচার ফিল্ম বিভাগে জাতীয় পুরস্কার জিতে নেয় রিমা দাস পরিচালিত এই ছবিটি। তবে শুধু সেরা ফিচার ফিল্মই নয়, সেরা শিশুশিল্পী, সেরা সাউন্ড রেকর্ডিস্ট ও সেরা সম্পাদনা বিভাগেও জাতীয় পুরস্কার জিতে।

২০১৭ সালে টরোন্টে ইন্টান্যাশনাল ফিল্ম ফেস্টিভ্যালে ছবিটির প্রিমিয়ার হয়েছিল। পরবর্তীতে দেশ-বিদেশের ৭০টি চলচ্চিত্র উৎসব ঘুরেছে এই ছবিটি। রিমা দাসের ‘ভিলেজ রকস্টারস’ অস্কারে পাঠানোর জন্য মনোনীত করার বিষয়ে জুরি মেম্বার অনন্ত মহাদেবন বলেন, ‘ভিলেজ রকস্টার’ ছবিটি একটি আন্তর্জাতিক মানের ছবি। আমরা এই ছবি অস্কারের মঞ্চে পাঠানোর জন্য মনোনিত করতে পেরে গর্বিত।’
সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম, টুইটারে এক টুইট বার্তায় পরিচালক রিমা দাস নিজের সিনেমা অস্কারে অংশগ্রহণের জন্য মনোনীত হওয়ার খবরে আবেগাপ্লুত হবার কথা জানিয়েছেন। তিনি উচ্ছ্বাস প্রকাশ করে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে লিখেন, ‘অস্কারে সেরা বিদেশি ভাষার চলচ্চিত্র বিভাগে আমার ছবিটি ভারতের প্রতিনিধিত্ব করবে। এমন খবর শোনার পর গর্বে আমার চোখে জল চলে এলো।’

ধুনু নামের এক গ্রামের কিশোরীর গল্প তুলে ধরা হয়েছে ‘ভিলেজ রকস্টারস’ সিনেমায়। যে কিশোরী অভাব আর দারিদ্রের সঙ্গে লড়াই করে প্রতিনিয়ত। কিন্তু সে স্বপ্ন দেখে রকস্টার হওয়ার। সে যোগ দেয় ছেলেদের এক খুদে ব্যান্ড দলে। একসময় তার রকস্টার হওয়ার স্বপ্নে অভাব, দারিদ্র্যতা আর বাধা হয়ে দাঁড়াতে পারে না।

ছবিটিতে কেন্দ্রীয় দুই চরিত্রে অভিনয় করেছেন ভানিতা দাস এবং মানবেন্দ্র দাস। সিনেমাটি ২০১৮ সালে ভারতের জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার অর্জন করে। ৮৭ মিনিটের এই ছবির কাহিনী ও চিত্রনাট্য লিখেছেন পরিচালক নিজেই।