বিশেষ সংবাদ:

সোমবারের এসএসসি পরীক্ষা শুক্রবার

Logoআপডেট: রবিবার, ০১ ফেব্রুয়ারি, ২০১৫

এবি প্রতিবেদক
বিএনপির ডাকা টানা ৭২ ঘন্টা হরতালের কারণে এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষা পেছানো হয়েছে।

 

২ ফেব্রুয়ারী পরীক্ষা শুরু হওয়ার কথা থাকলেও হরতালে শিক্ষার্থীদের নিরাপত্তাজনিত কারণে সোমবার থেকে এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষা শুরু হচ্ছে না। আর তাই সোমবারের পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে শুক্রবার।

 


তবে বুধবার থেকে নির্ধারিত সূচি অনুযায়ী পরবর্তী পরীক্ষাগুলো অনুষ্ঠিত হবে। সেই হিসেবে বুধবার থেকে শুরু হচ্ছে এবারের এসএসসি পরীক্ষা। রোববার সচিবালয়ে নিজ কার্যালয়ে সাংবাদিকদের ব্রিফিংকালে এ কথা জানিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ। শিক্ষামন্ত্রী বলেন, ‘শুক্রবার অনুষ্ঠিত পরীক্ষাটি সকাল ৯টা থেকে শুরু হয়ে বেলা ১২টায় শেষ হবে। এছাড়া অন্যান্য পরীক্ষাগুলো সকাল ১০টা থেকে বেলা ১টা পর্যন্ত চলবে।’

 

শিক্ষার্থীদের নিরাপত্তার কথা মাথায় রেখে হরতালে কোনো পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে না বলেও তিনি জানান। তিনি বলেন, ‘আমরা দেখেছি বাকি পরীক্ষাগুলোর সময় কোনো হরতাল দেয়া হয়নি। তাই বুধবার থেকে অন্যান্য পরীক্ষাগুলো আগের সূচি অনুযায়ীই চলবে। নাহিদ বলেন, ‘আমরা তাদের (বিএনপি) কাছে পজিটিভ উত্তরের আশায় ছিলাম। সে জায়গা থেকে প্রত্যাখ্যাত হয়েছি। শিক্ষক, ছাত্রছাত্রী, অভিভাবক সকলের ভয়, ভীতি ও উদ্বেগের কথা মাথায় রেখেই এ পরীক্ষাটি পরিবর্তন করা হলো। অবরোধের সময় পরীক্ষা চলবে কি না সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নের জবাবে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, ‘অবরোধে কোনো কাজ হচ্ছে না বলেই পরীক্ষা ঠেকাতে হরতাল আহ্বান করা হয়েছে। কাজেই অবরোধ কার্যকর নয়।

 

তাই অবরোধের মধ্যে পরীক্ষা চলবে। এর আগে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, ‘আমি বহুবার ২০ দলীয় জোটের প্রতি আহ্বান জানিয়েছি পরীক্ষার সময় যেনো হরতাল না ডাকেন। এবং তাদের হরতাল প্রত্যাহারেরও কথা বলেছি। আশা করেছিলাম তারা ভবিষ্যৎ প্রজন্মের কথা চিন্তা করে হরতাল প্রত্যাহার করবে। কিন্তু আজ বেলা ১২টা পর্যন্ত দেখলাম হরতাল প্রত্যাহারের কোনো লক্ষণই নেই। এমনকি বিএনপির এক নেতা বলেছেন- পরীক্ষা দিয়ে কি হবে? আগে গণতন্ত্র। তাদের এই ধরনের কথা থেকে আমরা বুঝতে পেরেছি তারা হরতাল প্রত্যাহার করবে না। তিনি বলেন, ‘আইন শৃঙ্খলাবাহিনী অবশ্য আমাদের নিরাপত্তা দেয়ার কথা বলেছিল। কিন্তু চোরাগোপ্তা হামলা হচ্ছে। যদি কিছু ঘটে যায়! তাই আমরা দায়িত্ব আবহেলা করতে পারি না। হিংস্রতার মুখে আমাদের ছেলে-মেয়েদের ঠেলে দিতে পারি না। এজন্যই পরীক্ষার তারিখ পরিবর্তন করা হলো। তিনি আশা প্রকাশ করে বলেন, ‘আগামী পরীক্ষাগুলোতে বিএনপির নেতৃত্বাধীন ২০ দলীয় জোট হরতাল ডাকা থেকে বিরত থাকবেন, এমনটাই আশা করবো।