বিশেষ সংবাদ:

লক্ষ্মীপুরে মাদক সম্রাটদের নিত্য নতুন কৌশল

Logoআপডেট: বৃহস্পতিবার, ১৯ মে, ২০১৬

বিশেষ প্রতিবেদক
জেলা পুলিশের বিশেষ অভিযানে মাদক ব্যবসায়ীরা গ্রেফতার, মাদক দ্রব্য অধিদপ্তর তৎপর থাকা সর্ত্বেও বর্তমানে লক্ষ্মীপুরে মাদক সম্রাটদের নিত্য নতুন কৌশলে রমরমা মাদক ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছে বলে জানা যায়।

 

পর্যাপ্ত জনবল না থাকায় লক্ষ্মীপুর জেলা মাদক দ্রব্য নিয়ন্ত্র কার্যালয়ের কর্মকর্তারা রয়েছেন বিপাকে। মাদক সম্রাটরা প্রশাসনের ধর-পাকড়ের কারণে আত্বগোপনে থেকে নিত্য নতুন কৌশল অবলম্বন করছে।

 

সূত্রে জানা যায়, বর্তমানে মাদক ব্যবসায়ীরা মটর বাইক ও রিক্সা যোগে পাইকারী মাদক পাচার করে যাচ্ছে। আটক হলেও প্রশাসনের নিকট জবানবন্দি যেন না দিতে পারে সে কারণে বোবা ব্যক্তিদের দ্বারা ও সর্বনাশা মাদক পাচার করছে মাদক সম্রাটরা। এতে করে নোংরা হচ্ছে এলাকাগুলোর পরিবেশ, ধ্বংসের শেষ প্রান্তে পতিত হচ্ছে যুব-সমাজ। স্কুল-কলেজ পড়–য়া কিশোররাও ধীরে ধীরে ঝুকঁছে মাদক আসক্তে। অভিযোগ রয়েছে, লক্ষ্মীপুর পৌরসভার ২ নং ওয়ার্ডে বোবার পুত্র জৈনক মাসুদ তার রমরমা ইয়াবা ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছে। ২নং ওয়ার্ড কসাই বাড়ী সংলগ্ন গাঁজা খালেক ও তার পুত্র সোহাগ দীর্ঘদিন থেকে রমরমা পাইকারী গাঁজার ব্যবসা চালিয়ে আসছে।

 

৫নং ওয়ার্ড দোখলা বাড়ীর ছিদ্দিক মিয়া পুত্র গাঁজা কবির, ৬নং ওয়ার্ড মসজিদ বাড়ীর জৈনক মিন্টু সর্বনাশা মাদকের দূর্গন্ধ সর্বত্র ছড়িয়ে দেওয়ার অভিযোগ রয়েছে। সদর  উপজেলার লাহারকান্দি ইউনিয়নের মৃত-ইদ্রিস মিয়ার পুত্র সফিক ও তার সেকেন্ড ইন কমান্ড আরিফ তাদের রমরমা ইয়াবা ব্যবসা চালিয়ে আসছে বলে এলাকাবাসীর অভিযোগ। অপরদিকে সদর উপজেলার যুগিঁর হাট বাজারের মাদক সম্রাট হিরন, আব্বাস রায়পুর উপজেলার বামনী ইউনিয়নের ফারুক রমরমা মাদক ব্যবসা করে আসছে।

 

লক্ষ্মীপুর মাদক দ্রব্য নিয়ন্ত্রন কার্যালয় সূত্রে জানা যায়, পর্যাপ্ত জনবল না থাকায় দ্রুত ব্যবস্থা নিতে পারছেন না তারা। জেলা মাদক দ্রব্য নিয়ন্ত্রন অফিসে নেই কোন গাড়ির ব্যবস্থা। কার্যালয়ের শূন্যপদ রয়েছে একজন এসআই, একজন সিপাহী। অন্য দিকে, গত মাসে জেলা মাদক দ্রব্য নিয়ন্ত্রন কার্যালয় কর্তৃক মোবাইল কোর্টে দুইটি মামলা রুজু হয়েছে বলে জানা যায়। এ ব্যাপারে সচেতন মহল অভিমত ব্যক্ত করে বলেন, সর্বনাশা মাদকের বিরুদ্ধে যে যার অবস্থান থেকে রুখে দাঁড়াতে হবে। স্থানীয় এলাকাবাসী মাদক ব্যবসায়ীদের গ্রেফতারের দাবী জানান।