বিশেষ সংবাদ:

দাবীদার

Logoআপডেট: সোমবার, ১৩ জুন, ২০১৬

কবি রওশন রুবী

 

কিছুরই দাবীদার নই আমি ,
কবে কখন পিতার সন্তান ছিলাম
তাও ভুলে গ্যাছে প্রিয় ভাই বোন ,
ভুলে যেতে যেতে বধ করেছে বিনয়,
বধ করেছে স্বজনের অধিকার।

 

দুকুলে শুধু এক তরবারি ছিল আমার
ওতে সান দিতে দিতে যুদ্ধে যাবার প্রস্তুতি নিতে হবে রাজার আদেশ এসে যেতো
বহুদিন আগে ,আজ দেখো রাজাগো
পৃথিবীতে যাদের রেখে গ্যাছো
তারা কতো নিষ্ঠাবান ধর্মে
কর্মে শুধু উঁইঢিবি জন্মেছে
সেই উঁইয়ের দল নিরবে দখল করছে
যা পাচ্ছে সামনে তাই ,ওরা অন্ধ ,
অন্ধের দায় ধার নাকি রাখেনি সমাজ।

 

কিছুরই দাবীদার নই পিতা
তোমার রেখে যাওয়া বাড়ির
সতেজ হাওয়াটুকুও আজ আমাকে স্পর্শ করতে দিচ্ছেনা তারা ,
যদি পাছে একখন্ড জমি আমাকে
দিয়ে দিতে হয় ,
যদি গোপনে যতনে আঁকড়ে থাকা দলিলগুলো তাদের স্বরে আমাকে দেখে চিনে ফেলে করে আহ্বান ,
তাই আজ বিসর্জিত সব সম্পর্ক ,
আজ তোমার প্রিয় মুখ তারা চেনেনা,

 

চেয়ে দেখ পিতা এই কপালে
প্রোথিত করে রেখেছি তোমার স্নেহের দলিল,
নখের জমিনে তোমার
বোতামের চন্দন সুগন্ধী লেগে আছে ,
এই জোড়া চোখ ভ্রু ঠোঁট
মেঠো শরীরের রঙ অবিকল তোমার,
যা তোমার কোন সন্তানের কাছে নেই বলে
লোকেরা আমাকে দেখলেই ছুটে এসে তোমাকে দেখতে পাবার লোভে দুটি কথা বলে
এই জমি, এই দলিল, সম্মানের চেয়ে
বড় সম্পদ আর কি হতে পারে ?

 

পিতা,তারা আমাকে বিতাড়িত করুক,
বিতাড়িত করুক সব সম্পদ ,সম্পর্ক থেকে,
কিছুরই দাবীদার হতে চাইনা
শুধু চাই তুমি পাশে থেকো
বহু অপমানে আমি জোছনার মতো ঘোরের মধ্যে তোমাকে ছুঁয়ে বাঁচি ।