বিশেষ সংবাদ:

ব্যাথা হৃদয়চরে

Logoআপডেট: শুক্রবার, ১৭ জুলাই, ২০১৫

ফারুক হোসেন শিহাব

 

অর্ধাহারে-অনাহারে ওদের জীবন কাটে,

মাথা গোঁজার ঠাঁইটুকু নেই থাকে পথে ঘাটে;

দিনগুণে কেউ পথশিশু কেউবা ছিন্নমূল,

সর্বহারা জীবন ওদেও নেইতো কিনার-কূল।

 

অনাদরে-অবহেলায় দিন-যে ওদের বয়,

এক মুঠো ভাত পেতে যেন রক্ত পানি হয়;

অভিশপ্ত যন্ত্রণাতে ওদের জীবন জ্বলে,

ভাগ্য ওদের আটকে আছে সমাজপতির ছলে।

 

আজকে যাদের গগণচুম্বি অট্টালিকা বাড়ী,

অসহায়দের ভাত-মেরে ওরা চালায় দামী গাড়ী;

মাসে মাসে মডেল বদল নিত্য-নতুন সাজ,

গরিব-দুঃখি চাইতে গেলেই কপাল করে ভাঁজ।

 

অথচ, এরা গরিব-দুঃখির মাথা বেচেই চলে,

জনসভা-টকশো’তে শুধু নীতিকথাই বলে;

আজকে যত দুস্থ মানুষ রাস্তাধারে বাস,

এদের নামে প্রতি বছর চলছে অর্থ-চাষ।

 

অথচ, এরা হাসের স্থলে ডিমও পায়না ভাগে,

এসব টাকা কোন পথে যায় শুধুই প্রশ্ন জাগে;

আবর্জনারস্তুপ থেকে এরা খাবার কুড়ায় নিত্য,

এসব দেখে ধনকুবেরদের কাঁপেনাতো চিত্ত!

অথচ, এরা পেটটি ভরে পায়না কবু খেতে,

তোমরা কি কেউ পারবে এদের দুঃখ মুছে দিতে?

 

ঝড়ে উড়ে রোদে পুড়ে এদের জীবনতরী,

নষ্ট খেলার কষ্টে এরা করছে জড়া-জড়ি;

ঈদ আনন্দ বইছে যে আজ সবার ঘরে-ঘরে,

এদের কোন আনন্দ নেই ব্যাথা হৃদয়চরে।

 

সবাই এদের লাঞ্জনা আর বঞ্জনাতে পিষে!

মানবতার বিপর্যয়ে পায়না ওরা দিশে;

এদের দুঃখে এই পৃথিবীর আকাশ বাতাস ভারী,

খোদাতালাও শুনছেনা যেন এদের আহাজারি।