বিশেষ সংবাদ:

রওশন আরা রুবি'র 'পরাভূত মন'

Logoআপডেট: মঙ্গলবার, ২১ জুলাই, ২০১৫

 

রেবেকার সাথে কথা বলিনি দুঃখ অনেক।

শ্রমের ভেতর থেকে উঠে আসা শরীর
সবুজ মেশা চোখ,কি যেনো বলতে চেয়ে থেমে গেছে।ডুবো বিকেলের কপালে 
বৈশাখের হাওয়া ছিলো না আন্তরিক,
কোমল।

ফায়ার প্লাসের ব্যবহারহীন বুকে
ছিলো নিভু উত্তাপ।মনোযোগ নিবে বলে গ্লাস, কাপ,শো-পিচে শব্দ তুলে ছিল মিহি মনোরম।

ওকি বেতন বাড়াতে চেয়েছিল?
চেয়েছিল কি দুর্বিত্তের কথা জানাতে?
কথা বলিনি দুঃখ অনেক।

গতকাল বৈশাখের তান্ডবলীলা
তুলে আনা খবরের কাগজে 
ওর ছবিটা ফুলে ডোম হয়ে
পড়ে আছে থুবড়ানো গাছের ফাঁকে।

এখন আর ওর শুভ্র রঙ এর ভেতর রক্ত কথা বলে না।কাত হয়ে পড়ে থাকা 
নৌকার মতো সবুজ চোখেও কিছু নেই।
মলিন কাঁথার মতো হাত জলেস্থলে পড়ে থাকা শিশুর দিকে নিক্ষিপ্ত।
ও বাঁচাতে চেয়েছে তবু তার প্রাণের নির্যাস,
বিপদে রক্ষা করতে চেয়েছে মমতা।

কেন কাল বলিনি তোরা থেকে যা।
আমি তো জেনে ছিলাম ঝড়ের পূর্বাবাস।
ওকি জেনে ছিলো?সে কথাই বলতে চেয়েছিল ?

অজান্তে আমিই কি তবে তাদের হত্যাকারী?

এখন কেন অনুশোচনা হয়?
কেন আত্নার পাশে তীব্র ব্যথা নাচে?
কেন ঘুমের মধ্যেও ঐদুটি প্রাণ 
আমাকে ধাবিত করে?
আঙুল তুলে যেন বলে"আমিই তাদের মরণ"