বিশেষ সংবাদ:

বিশ্ব পুতুলনাট্য দিবসে আজীবন সম্মাননা পেলেন মুস্তাফা মনোয়ার

Logoআপডেট: বৃহস্পতিবার, ২২ মার্চ, ২০১৮

এবি প্রতিবেদক
সম্মাননা দেশবরেণ্য পাপেটশিল্পী মুস্তাফা মনোয়ার পেলেন আজীবন। পুতুলনাট্যে অসামান্য অবদানের জন্য গতকাল বিশ্ব পুতুলনাট্য দিবসের অনুষ্ঠানে তাকে এ সম্মাননা প্রদান করা হয়। অনুষ্ঠানে গুণী পুতুলনাট্য শিল্পীর সম্মাননা পেয়েছেন মোঃ মোশারেফ হোসেন দর্জি।

গতকাল ২১ মার্চ বুধবার ছিল বিশ্ব পুতুল নাট্য দিবস। এ উপলক্ষে সন্ধ্যা ৬টায় বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমির আয়োজনে একাডেমির জাতীয় নাট্যশালার এক্সপেরিমেন্টাল থিয়েটার হলে অনুষ্ঠিত হয় আলোচনা, সম্মাননা প্রদান ও মাল্টিমিডিয়া পাপেট থিয়েটার প্রদর্শনী।

শিল্পকলার নাট্যকলা ও চলচ্চিত্র বিভাগের ব্যবস্থাপনায় বিকেল সাড়ে ৪টায় একাডেমির জাতীয় নাট্যশালার স্টুডিও থিয়েটার হলে অনুষ্ঠিত হয় পুতুলনাট্য প্রদর্শনী। এ পরিবেশনায় অংশ নেয় বাগেরহাট-এর দি আজাদ পুতুলনাট্য এবং বাংলাদেশ পুতুলনাট্য গবেষণা ও উন্নয়ন কেন্দ্র জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়।

শিশুর মুখে হাসি ফোটানোর জন্য তাদের হাতে পুতুল তুলে দেন না এমন জাতি-গোষ্ঠী, ধর্ম-বর্ণের মানুষ পাওয়া দুষ্কর। কেননা, পুতুল মানুষের চিরকালীন সঙ্গী। মানব সভ্যতার সমান বয়সী এই পুতুল সুতা কিংবা কাঠির সাহায্যে নড়াচড়া করিয়ে বিনোদন ও লোকশিক্ষার মাধ্যম হিসাবে মানুষ ব্যবহার করে আসছেন- এই ইতিহাস-ঐতিহ্যও হাজার বছরের। ভারতবর্ষ পুতুলনাট্যের আদিভূমি হিসেবে ইতিহাসের প্রামাণ্য দ্বারা স্বীকৃত। বাংলাদেশেও পুতুলনাট্যের ঐতিহ্য হাজার বছরের- গবেষণা ও প্রকাশনার মাধ্যমে এটি ইতোমধ্যে প্রমাণিত হয়েছে।

ঐতিহ্যবাহী ধারার পুতুলনাট্যকে টিকিয়ে রাখা এবং একে সমৃদ্ধ করে এই শিল্প আঙ্গিকের অমিত শক্তির সম্ভাবনার দিকসমূহকে নানাবিধ কাজে ব্যবহারে উজ্জীবিত করার লক্ষ্যে বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমির আয়োজনে ২০০৭ থেকে এযাবৎ বেশ কয়েকটি পুতুলনাট্য উৎসব এবং কয়েকটি আবাসিক কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

২০১৩ থেকে ২১ মার্চ বিশ্ব পুতুলনাট্য দিবস উদযাপন এবং প্রতি বছর একজন শিল্পীকে সম্মাননা প্রদান করে আসছে বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমি। এ ছাড়া ২০১৩ সালে ইন্দোনেশিয়ার জার্কাতায় শিল্পকলা একাডেমির উদ্যোগে ‘বাংলাদেশের গল্প’ শীর্ষক পুতুলনাট্য ডড়ৎষফ চঁঢ়ঢ়বঃ ঈধৎহরাধষ ২০১৩-তে অংশগ্রহণ করে অর্জন করেছে ‘Best Traditional Musical Puppet Shwo Award’।

শুধু তাই নয়, পুতুলনাট্যের অধিকতর চর্চা, প্রচার, প্রসার, সংরক্ষণ ও উন্নয়নে এরই মধ্যে বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমি যুগান্তকারী বেশ কিছু পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে। বিলুপ্তির পথে নিমজ্জিত হওয়া এ শিল্পের পুণজ্জীবনে যা নতুন আশার সঞ্চার করেছে। একইভাবে দেশের পুতুলশিল্পীদের উৎসাহ, প্রণোদনা এবং প্রশিক্ষণে বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমি কাজ করছে।