বিশেষ সংবাদ:

‘উজানে মৃত্যু’ হবে আগামীকাল

Logoআপডেট: বুধবার, ১৯ সেপ্টেম্বর, ২০১৮

এবি প্রতিবেদক
মানবতরী টেনে নিয়ে উজানের দিকে ছুটে চলেছে রজ (নৌকাবাহক) কিন্তু সত্ত্ব (সাদা পোশাকধারী) ফিরে যেতে চায় ভাটির দিকে। সে নিষ্পেষিত হয়েও নিজ পরিবার স্বজন চেনা বলয়ে বেঁচে থাকতে চায়। অপরদিকে, তমো (কালো পোশাকধারী) উজানে যাবার পথে ভ্রান্তির সৃষ্টি করতে থাকে একের পর এক।
এমনি সামন্তবাদী সমাজের প্রতিনিধিদের দ্বারা নিষ্পেষিত মানবতরী কি মৃত্যু (আত্মহত্যা)র মধ্য দিয়ে মুক্তিলাভ করবে? নাকি ফিরে যাবে? এই দ্বন্দ্বে লিপ্ত থাকে মানবতরীর তিন সত্ত্বা। দেখে জীবন নদীর বাঁকে বাঁকে কতজন আত্মহত্যার মধ্য দিয়ে কাঙ্ক্ষিত মুক্তি লাভ করেছে। তাদের কাছে এ মুক্তিকে বড়ই রঙিন মনে হয়। আবার সুখস্মৃতি টেনে ধরে পিছে থেকে, দুঃখস্মৃতি সেই বাঁধনকে ছিঁড়ে বারবার।

এমনি ঘটনাবৃত্তে নির্মিত হয়েছে থিয়েটার দল পালাকারের নাটক ‘উজানের মৃত্যু’। আজ বৃহস্পতিবার বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমিতে আগামীকাল ২০ সেপ্টেম্বর প্রদর্শিত হবে সাড়া জাগানো এ নাটকটি। জাতীয় নাট্যশালার স্টুডিও থিয়েটার হলে সন্ধ্যা ৭টায় মঞ্চস্থ হবে নাটকটি। সৈয়দ ওয়ালীউল্লাহ রচিত এ নাটকের নির্দেশনা দিয়েছেন শামীম সাগর।
নাটকে দেখা যায়, একটা সময় মানব মনে ঝড়ের সৃষ্টি হয়; আলোড়নে সব কিছু ওলট-পালট হয়ে যায়। তিনটি সত্ত্বাই তখন মৃত্যুর (আত্মহত্যা) মধ্য দিয়ে এই সামন্তবাদী সমাজের শোষণ থেকে মুক্তি পেতে চায়। এমনি পরিস্থিতিতে হতাশাবাদীতাকে চ্যালেঞ্জ ছুড়ে দিয়ে জীবনের গান গেয়ে ভাটির দিকে ছুটে চলে বাইচের নৌকা। এমনি প্রান্তিক মানুষের দুর্দশা ট্র্যাজিক সুরের ব্যঞ্জনায় চিত্রায়নে আবৃত হয়েছে প্রতিশ্রুতিশীল নাট্যসংগঠন পালাকারের নতুন প্রযোজনা ‘উজানে মৃত্যু’।

নাটকটির শিল্প নির্দেশনায় রয়েছেন আমিনুর রহমান মুকুল। বাবর খাদেমীর আলোকায়নে নাটকের পোশাক পরিকল্পনা করেছেন ফাহমিদা মল্লিক শিশির এবং অনিকেত পাল বাবুর কোরিওগ্রাফিতে সঙ্গীত পরিকল্পনা করেছেন অজয় দাশ। নাটকটির বিভিন্ন চরিত্রে অভিনয় করছেন- আসাদুজ্জামান শুভ (নৌকা বাহক), সাজ্জাদ হোসেন নিষাদ (সাদা পোশাকধারী), চারু পিন্টু (কালো পোশাকধারী), শতাব্দী সানজানা (বউ, বাইচাল, কোরাস), সোনিয়া আক্তার (ডুবে মরা ব্যক্তি, কোরাস), নির্ভানা ইভা (মহাজন, বাঁশে বিদ্ধ ব্যক্তি, কোরাস)।