বিশেষ সংবাদ:

অবশেষে মঞ্চে আসছে আরণ্যকের ‘সঙক্রান্তি’

Logoআপডেট: বুধবার, ২৬ সেপ্টেম্বর, ২০১৮

এবি প্রতিবেদক
দীর্ঘ প্রায় ছয় বছরের বিরতি কাটিয়ে অবশেষে আবারও মঞ্চে আসছে আরণ্যকের সাড়া জাগানো নাটক ‘সঙক্রান্তি’। রাজধানীর সেগুন বাগিচাস্থ বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমিতে আগামীকাল ২৭ সেপ্টেম্বর প্রদর্শিত হবে নাট্যজন মামুনুর রশীদ রচিত ও নির্দেশিত এ নাটকটি। 

জাতীয় নাট্যশালার পরীক্ষণ থিয়েটার হলে এদিন সন্ধ্যা ৭টায় অনুষ্ঠিত হবে আলোচিত এই নাটকের ১২৩তম মঞ্চায়ন। জনপ্রিয় এ নাটককে ঘিরে অনেকদিন পর আবারও একই মঞ্চে দেখা যাবে এ সময়ের আলোচিত একঝাঁক তারকাশিল্পীকে। গত কয়েকদিন থেকে টানা মহড়ায় অংশ নিচ্ছেন আরণ্যক নাট্যদলের এসব অভিনয়শিল্পীরা। দীর্ঘদিন নাটকটির মঞ্চায়ন বন্ধ থাকায় নিজেদের পারফেক্ট অভিনয়র জন্য নিজেকে প্রস্তুত করতে সবাই কঠোর পরিশ্রম করছেন বলে জানা গেছে।

নাটকটির বিভিন্ন চরিত্রে অভিনয় করবেন- আ খ ম হাসান, শামীম জামান, মোমেনা চৌধুরী, কৌশিক সাহা, রানা, সাজ্জাদ সাজু, শাহ আলম দুলাল, আরিফ হোসেন আপেল, আমানুল হক হেলাল, পরিমল মজুমদার, দিলু মজুমদার, মাহফুজ, অয়ন ঘোষ, কামরুল হাসান, মুগ্ধ, জাহিদ, পারভেজ, তাজু এবং মামুনুর রশীদ।

এছাড়া নাটকের আবহসঙ্গীত পরিকল্পনা করেছেন পরিমল মজুমদার ও উত্তম চক্রবর্তী। বাদ্যযন্ত্রী হিসেবে আছেন পরিমল মজুমদার, আমিনুল হক, অয়ন ঘোষ ও উত্তম চক্রবর্তী। নাটকে নেপথ্য কণ্ঠে রয়েছেন আমিনুল হক ও পরিমল মজুমদার। দ্রব্যসামগ্রী আপেল, কামরুল, অয়ন ও বাপ্পা।

প্রসঙ্গত, ২০০১ সালে নাটকটি প্রথম মঞ্চে আসে। এরপর নিয়মিত প্রদর্শনীর ধারাবাহিকতায় নাটকটি দর্শক-সমালোচকদের কাছে ব্যাপক জনপ্রিয়তা লাভ করে। ২০০৯ সালের অক্টোবরে জাতীয় নাট্যশালায় বর্ণাঢ্য উৎসবের মধ্য দিয়ে ‘সঙক্রান্তি’ নাটকের শততম মঞ্চায়ন উদযাপন করা হয়।
‘ময়ূর ও সঙক্রান্তির উৎসব’ শিরোনামের এই আসরে ছিল দলের আরেক দর্শকনন্দিত নাটক ‘ময়ূর সিংহাসন’-এরও শততম মঞ্চায়ন। ২০১৩ সালে দলের প্রতিষ্ঠার ৪০ বছর পূর্তি উপলক্ষে আয়োজিত ‘আরণ্যকের ৪০ বছর উৎসব’-এ সর্বশেষ নাটকটি প্রদর্শিত হয়। এরপর দীর্ঘ ছয় বছরে আর কোনো প্রদর্শনী হয়নি।

প্রসঙ্গত, দেশের প্রথমসারির থিয়েটার সংগঠন আরণ্যকের অন্যতম দর্শকনন্দিত নাটক ‘সঙক্রান্তি’। সঙ ঘরানায় হাস্য-রস্যতার মধ্য দিয়ে প্রান্তিক মানুষের জীবনবোধের গল্প নিয়ে গড়ে ওঠা এ নাটকটি দর্শকদের মনে দারুণভাবে দাগ কেটেছে। কিন্তু তারকাবহুল নাটক হওয়ায় ব্যস্ত নগরীর যান্ত্রিকতায় দীর্ঘ সময় নাটকটির মঞ্চায়ন অনুষ্ঠিত হয়নি।