বিশেষ সংবাদ:

গঙ্গা-যমুনা সাংস্কৃতিক উৎসবে ‘বশীকরণ’

Logoআপডেট: শুক্রবার, ০৫ অক্টোবর, ২০১৮

এবি প্রতিবেদক

দুই বাংলার বিভিন্ন সাংস্কৃতিক সংগঠনের অংশগ্রহণে ঢাকার নাটকপাড়া-খ্যাত বাংলাদেশে শিল্পকলা একাডেমির জাতীয় নাট্যশালায় চলছে বৃহত্তর সাংস্কৃতিক আয়োজন ‘গঙ্গা যমুনা সাংস্কৃতিক উৎসব’। এবার দর্শকনন্দিত প্রযোজনা নিয়ে ভারতের ৪টি নাট্যদল, ঢাকা ও ঢাকার বাইরের ২৬টি নাট্যদলসহ মোট ৩০টি থিয়েটার সংগঠন অংশ নিচ্ছে  সপ্তমবারের মত আয়োজিত এ আসরে।

আগামী ৮ অক্টোবর জমজমাট এই সংস্কৃতিযজ্ঞে প্রদর্শিত হবে ঢাকার মঞ্চের সম্ভাবনাময় থিয়েটার সংগঠন সংস্কার নাট্যদলের ৫ম প্রযোজনা  ‘বশীকরণ’। এদিন সন্ধ্যা ৭টায় জাতীয় নাট্যশালার স্টুডিও থিয়েটার হলে মঞ্চায়িত হবে কবিগুরু রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর রচিত এই নাটকটি।

ব্যতিক্রমী এই নাট্যাখ্যান নবনাট্য রূপায়ন ও নির্দেশনা দিয়েছেন ইউসুফ হাসান অর্ক। ‘বশীকরণ’ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘নাটকটির নব নাটলিপির প্রয়োগে বাংলা নাটকের সারল্য ও ইঙ্গিতমূলক অভিনয়ের সম্ভাবনাকে প্রয়োগ করা হয়েছে। এটি বর্ণনামূলক নয় তবে মঞ্চায়নশৈলী ও অভিনেতাদের চরিত্রায়ণে বাংলাদেশর সামাজিকগণের যে অবাধ প্রশ্রয় ও বিশ্বাস- তাকে বিশ্বাস করেই এই প্রযোজনার শরীর নির্মাণ।’

নাটকে দেখা যাবে- দুই বিপরীতমূখী দর্শনে দীক্ষিত বন্ধু অন্নদা ও আশু। অন্নদা ব্রাহ্মধর্ম গ্রহণ করায় খানিকটা আধুনিক, পাশ্চাত্য যুক্তিবাদ ও তথাকথিত বিজ্ঞানমনস্ক। আশু ফিজিক্যাল সাইন্সে এম.এ করেও সনাতন ধর্মেও সংস্কার ও ভক্তিবাদে বিশ্বাসী। অন্নদার স্ত্রী তার শ্বশুরের গোঁড়ামিতে অনিচ্ছাসত্তে¡ও স্বামী ছেঁড়ে গয়াকাশী ঘুরে বশীকরণ মন্ত্রে দীক্ষাদাত্রী মাতাজি সেজে এই শহওে এসেছেন। আরেক বিধবা মা তার কন্যাকে পাত্রস্থ করার পরিকল্পনা নিয়ে একই শহওে হাজির। ঘটনাক্রমে দুজন যে দুটি বাড়ি ভাড়া নিয়েছে তা একই মালিকের। মাতাজির আবদাওে বাড়িওয়ালা তার জন্য বরাদ্দকৃত ২২ নম্বর বাড়ি থেকে তাকে ৪৯ নম্বরে পাঠান। আর ঐ বিধাব মাতা ওঠেন ২২ নম্বরে।

অন্নদার ৪৯ নম্বরে এক কন্যা দেখতে যাওয়ার কথা ছিলো। আর আশুর যাওয়ার কথা ২২ নম্বরে মন্ত্র দীক্ষা নিতে। বন্ধ যুগলের জানা হলো না যে ভাড়াটে বদল হয়েছে। তাই ভাড়াটে বদল হয়ে যাওয়ার বিভ্রাটে পড়ে দু’জনই। নানা ঝামেলার পর দেখা যায় অন্নদার স্ত্রীই আসলে মাতাজি আর দীক্ষা নিতে গিয়ে দেখা গেল কনেটাকেও আশু’র পছন্দ হয়। এই নিয়ে কারবার। শেষ পর্যন্ত বিপরীত দার্শনিকতার দুই বন্ধুরই বশীকরণ ঘটে। এমনি গল্পে গড়ে উঠেছে নাটক বশিকরণ।

হাবিব মাসুদের আলোক পরিকল্পনায় নাটকের পোশাক করেছেন সামিউন জাহান দোলা এবং কোরিওগ্রাফিতে রয়েছেন আমিনুল আশরাফ। নাটকটির বিভিন্ন চরিত্রে অভিনয় করেছেন মনামী ইসলাম কনক, আশিকুর রহমান, ঊাপ্পী সাইফ, নদী বাপ্পী, পৃথা দে, মফিজুর রহমান শ্রাবণ, সেলিম রেজা স্বপন, ফাতেমাতুজ জোহরা ইভা, সামিয়া সুলতানা, ছালেহ্ আহমেদ মুকুল, সন্তু বৈরাগী এবং এন.ডি চঞ্চল-সহ আরো অনেকে।