বিশেষ সংবাদ:

শুক্রবার মৈত্রীর ‘কেনারাম বেচারাম’

Logoআপডেট: বুধবার, ১০ অক্টোবর, ২০১৮

এবি প্রতিবেদক

বেচারাম চাটুজ্জে একটি মধ্যবিত্ত পরিবারের গৃহকর্তা। কিন্তু তা কেবলই নামে, বাস্তবতা একেবারেই ভিন্ন। যিনি নিরাপদ আবাসস্থল, ছেলের পড়াশুনা, মেয়ের বিয়ে, সন্তানদের সুন্দর জীবন নিশ্চিত করতে নিজে সর্বস্বান্ত হয়েছিলেন, তিনিই আজ সেই সন্তানদের কাছে বোঝা।

ভালো কিছু খেতে চাইলে পায় না, প্রেস্টিজ থাকবে না বলে মেহমান এলে তাকে পার্কে পাঠিয়ে দেয়,পূজোয় যা তা কিছু ধরিয়ে দেয়, ঠিকমত চিকিৎসা করাবার নাম নেই। এরকম আরো অনেক কষ্ট-যন্ত্রণায় বেচারাম চাটুজ্জে নিরুদ্দেশ হন। বাবার অবর্তমানে ছেলে মেয়ের মধ্যে শুরু হয় সম্পত্তি-গয়নাগাটির ভাগ বাটোয়ারা নিয়ে নানা জল্পনা পরিকল্পনা। ঠিক তখনই এই বাড়িতে আগমন ঘটে শূন্যস্থান পূরণের কারিগরি নগেন পাঁজা। সে এ পরিবারের বাবার জায়গায় ফিট করার জন্য সাথে নিয়ে আসে কেনারাম চাটুজ্জেকে। প্রথমে বাড়ির সবাই মেনে না নিলেও নগেনের প্ররোচনায় আর সম্পত্তির লোভে সবাই মেনে নেয়।

এমনিভাবে নকল বাবাকে ঘিরে তৈরি হয় আহ্লাদ আদরের এক হাস্যকর নাটকীয়তা। যেখানে নিজের দাদুকে চরম অনাদর অবজ্ঞা সহ্য করতে হয়েছিল সেখানে এই নকল লোকটাকে নিয়ে আদিক্ষেতা সহ্য হয় না টোটনের। এমনি ঘটনাবৃত্তে গড়ে উঠেছে নাটক ‘কেনারাম বেচারাম’।

হাস্য-রসাত্মক ঢঙয়ে লোভ, নৈতিক অবক্ষয় ও পারিবারিক নানা জটিলতায় ঘেরা এ নাটকটি রচনা করেছেন উপমহাদেশের বরেণ্য নাট্যজন মনোজ মিত্র। নাটকটি নির্দেশনা দিয়েছেন কাজল মজুমদার। বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমিতে চলমান ‘গঙ্গা-যমুনা সাংস্কৃতিক উৎসব’-এ প্রদর্শনীর জন্য মনোনীত হয়েছে নাটকটি। আগামীকাল ১১ অক্টোবর বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা ৭ টায় জাতীয় নাট্যশালার স্টুডিও থিয়েটার হলে প্রদর্শত হবে নাটকটি।