বিশেষ সংবাদ:

ভাই-বোন জানার পরও সংসার করবেন দুই ব্রাজিলীয়ান!

Logoআপডেট: বৃহস্পতিবার, ০৭ আগস্ট, ২০১৪

এবি ডেস্ক
জীবনযুদ্ধে কতো আশ্চর্যই মানুষকে বিস্মত করে। তেমনি অনাকাঙ্খিত এক বিস্ময়কর সত্যের মুখোমুখি হতে হলো হতভাগি আদরিয়ানাকে।

সাত বছর সংসার করার পর ব্রাজিলীয়ান আদরিয়ানা জানতে পেরেছেন তার প্রিয়তম তারই আপন মায়ের পেটের ভাই। এমন সত্য জানার পরও তারা আলাদ হচ্ছেন না বলে জানিয়েছেন আদরিয়ানা।

 

সাত বছর আগে ব্রাজিলের আদরিয়ানা(৩৯) বিয়ে করেন তার চাইতে দুই বছরের ছোট লেয়ান্দ্রোকে। তাদের ছয় বছরের একটি মেয়েও রয়েছে।

সম্প্রতি আদরিয়ানা জানতে পেরেছেন, তার সঙ্গী লেয়ান্দ্রো আসলে তার মায়ের পেটের ছোট ভাই। এই সত্য উদঘাটনের পর প্রথমে মুষড়ে পড়েছেন আদরিয়ানা। তাই বলে তারা আলাদ হচ্ছেন না-একসঙ্গে থাকার সিদ্ধান্তে অটল রয়েছেন এই দম্পতি।

 

আদরিয়ানার যখন এক বছরের তখন তাকে ছেড়ে যান তার মা মারিয়া। এরপর বাবার কাছেই মানুষ হন। বড় হওয়ার পর থেকে মাকে খুঁজতে থাকেন আদরিয়ানা। বিয়ের পরও মাকে কাছে পাওয়ার বাসনা থেকে পিছু হটেননি।

এদিকে নিজের মাকে খুঁজে বেড়াচ্ছিলেন তার স্বামী। কিন্তু ব্রাজিলের এই দম্পতি স্বপ্নেও ভাবেননি তাদের জন্য কতবড় বিস্ময় অপেক্ষা করছে। চলতি সপ্তাহে তারা আবিষ্কার করেন, এতদিন তারা আসলে একজনকেই খুঁজে বেড়াচ্ছেন এবং তিনি তাদের জন্মধাত্রী।

 

ট্রাকচালক লেয়ান্দ্রেকেও তারা মা ছেড়ে গিয়েছিলেন। তখন সে আট বছরের বালক। তার জন্ম ব্রাজিলের সাও পাওলো শহরে। সেই একই শহরে বেড়ে ওঠেন আদরিয়ানাও। ভাগ্যের কী নির্মমতা, একই শহরে থেকেও একবারের জন্যও দেখা হয়নি দুই ভাইবোনের। মাত্র ১৫ বছর বয়সে জীবিকার সন্ধানে সাও পাওলো ছেড়ে আসেন আদরিয়ানা। যথারীতি বিয়ে করেন এবং একে একে তিনটি সন্তানের মা হন। বিয়ে ভেঙে যাওয়ায় দীর্ঘ দশ বছর পর নিজের শহরে ফিরে আসেন আদরিয়ানা। সেখানেই লিয়ান্দ্রের সঙ্গে পরিচয় এবং প্রেম।

 

এরপর থেকে একসঙ্গেই থাকছেন দু’জন। কিন্তু এতকিছুর পরও মাকে দেখার আশা ত্যাগ করেনি তারা। মায়ের খোঁজ পেতে গত মাসে শহরের এক রেডিও অনুষ্ঠানের শরণাপন্ন হন আদরিয়ানা। সেখানেই সরাসরি সম্প্রচারিত এক অনুষ্ঠানে মায়ের দেখা পান। ‘রেডিও গোলাবো’তে প্রচারিত ‘দা টাইম ইজ নাউ’ অনুষ্ঠানের একেবারে শেষ পর্যায়ে তার মা জানান, তার আরো একটি ছেলে আছে এবং তার নাম লেয়ান্দ্রো। ঠিক তখনই এক কঠিন সত্যের মুখোমুখি হন আদরিয়ানা। ‘নিজের আপন ছোট ভাই লেয়ান্দ্রো আমার স্বামী’- এ কথা জানার পর কান্নায় ভেঙে পড়ে সে। তার ভয় ছিল, সত্য জানার পর লিয়ান্দ্রো হয়তো তাকে ছেড়ে যাবে। এজন্য বাসায় ফিরতেও ইচ্ছে হচ্ছিল না তার। কিন্তু ভুল ভেবেছিলেন আদরিয়ানা।

 

‘রেডিও গ্লোবোকে’ আদরিয়ানা ও লিয়ান্দ্রো জানিয়েছেন, তারা একসঙ্গে থাকছেন-কেউ কাউকে ছেড়ে যাচ্ছেন না। ছোটবেলায় তাদের ছেড়ে যাওয়ার জন্য একবারের জন্যও মাকে দুষছেন না এই দম্পতি। ইতিমধ্যে মা মারিয়ার সঙ্গে টেলিফোনে কথা বলেছেন বেশ কয়েকবার। কয়েকদিনের মধ্যেই তারা মার সঙ্গে দেখা করতে যাচ্ছেন। এ বিষয়ে আদরিয়ানো বলেন,‘কেবল মৃত্যুই আমাদের পৃথক করতে পারবে। আমাদের জীবনে যা ঘেটেছে তাতে ঈশ্বরের হাত ছিল। তবে আগে আমাদের সম্পর্কের কথা জানাজানি হলে অবশ্য ব্যাপারটা অন্যরকম হত। তখন আমরা প্রেমে পড়তাম না এবং একসঙ্গেও থাকতাম না।