বিশেষ সংবাদ:

নিজের শিশুকন্যাকে কামড়িয়ে ও শ্বাসরোধে হত্যা করলেন পাষন্ড মা!

Logoআপডেট: সোমবার, ৩০ মার্চ, ২০১৫

এবি প্রতিবেদক
আট মাস বয়সী শিশুকন্যা সুলতানা খাতুনকে শরীরের বিভিন্ন স্থানে কামড়িয়ে ও শ্বাসরোধে হত্যা করেছে তারই পাষন্ড গর্ভধারিনী মা ফাহিমা বেগম। বগুড়ার ধুনট উপজেলার উপজেলার নিমগাছী গ্রামে রোববার রাতে এ মর্মান্তিক ঘটনা ঘটে।

 

সোমবার সকালে পুলিশ লাশ উদ্ধার করে মর্গে পাঠিয়েছে। দুপুরে ঘাতক মাকে গ্রেফতার করা হয়েছে। জিজ্ঞাসাবাদে ফাহিমা তার শিশুকন্যাকে হত্যার কথা স্বীকার করেছেন।

 

নিহতের নানা জনাব আলী এ ব্যাপারে থানায় নিজ মেয়ে ফাহিমা বেগমের বিরুদ্ধে হত্যা মামলা করেছেন। পুলিশের ধারণা, দাম্পত্য কলহের কারণে মানসিকভাবে বিপর্যস্ত হয়েই ফাহিমা তার শিশুকন্যাকে হত্যা করেছেন।


পুলিশ ও গ্রামবাসীরা জানান, বগুড়ার ধুনট উপজেলার মাদারভিটা গ্রামের আনোয়ার হোসেন প্রায় দু’বছর আগে পার্শ্ববর্তী নিমগাছী গ্রামের জনাব আলীর মেয়ে ফাহিমা বেগমকে (২৫) বিয়ে করেন। তিনি ঢাকায় একটি গার্মেন্টে চাকরি করেন।

 

দাম্পত্য কলহের কারণে ফাহিমা বেগম চার মাস আগে ৮ মাসের শিশুকন্যা সুলতানাকে নিয়ে বাবার বাড়িতে আশ্রয় নেন। গত রোববার ফাহিমা তার মেয়ে সুলতানাকে নিয়ে পাশেই ভাই পলাশের বাড়িতে যান। রাত ৯টা থেকে ৩টার মধ্যে কোন এক সময়ে ফাহিমা তার মেয়ে সুলতানাকে নাক, মুখ, গোপনাঙ্গসহ শরীরের বিভিন্ন স্থানে কামড়িয়ে ক্ষতবিক্ষত এবং শ্বাসরোধে হত্যা করে পালিয়ে যায়।


এ বিষয়ে ধুনট থানার ওসি জিয়াউর রহমান আমার বিনোদনকে বলেন, সোমবার সকালে শিশুটির ক্ষতবিক্ষত লাশ উদ্ধার করা হয়। পরে দুপুরে ঘাতক মা ফাহিমাকে বিলচাপড়ি এলাকা থেকে গ্রেফতার করা হয়েছে। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে তিনি তার মেয়েকে হত্যার কথা স্বীকার করেছেন। ওসি জানান, ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তি নিতে তাকে আদালতে পাঠানো হবে।