বিশেষ সংবাদ:

বর্ণাঢ্য আনুষ্ঠানিকতায় শুরু হলো ৫ম জাতীয় যুবনাট্য উৎসব ২০১৬

Logoআপডেট: শনিবার, ২৩ এপ্রিল, ২০১৬

এবি প্রতিবেদক
যুবদের তথা সম্ভাবনাময় আগামী প্রজন্মকে সংস্কৃতিমনষ্ক করে তোলার প্রত্যয়ে পিপল্স থিয়েটার এসোসিয়েশন (পিটিএ)’র আয়োজনে এবং সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয় ও বাংলাদেশ শিল্পকলা একডেমির সহযোগিতায় ২৩ এপ্রিল ২০১৬ শুরু হলো ‘৫ম জাতীয় যুবনাট্য উৎসব ২০১৬’।

আগামী ৩০ এপ্রিল ২০১৬ পর্যন্ত বাংলাদেশ শিল্পকলা একডেমির জাতীয় নাট্যশালা, এক্সপেরিমেন্টাল থিয়েটার হল এবং সঙ্গীত ও নৃত্যকলা কেন্দ্র মিলনায়তন হলে ৮ দিনব্যাপী উৎসবে সারাদেশের ৩১টি কলেজ-বিশ^বিদ্যালয় এবং যুব নাট্যদল অংশগ্রহণ করছে।

৩০ এপ্রিল বিকেল ৫টায় বাংলাদেশ শিল্পকলা একডেমির জাতীয় নাট্যশালা মিলনায়তনে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে উৎসব উদ্বোধন করেন আন্তর্জাতিক শিশু নাট্যোৎসবের প্রবক্তা ও জার্মান অ্যামেচার থিয়েটার ফেডারেশানের সাম্মানিক সভাপতি নরবার্ট রাডারমাখার। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সচিব আক্তারী মমতাজ, আইটিআই বিশ^কেন্দ্রের সাম্মানিক সভাপতি রামেন্দু মজুমদার, পিপল্স থিয়েটার এসোসিয়েশনের উপদেষ্টা এস. এম মহসীন। অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য প্রদান করেন পিটিএর ভারপ্রাপ্ত সেক্রেটারী জেনারেল কৃষ্টি হেফাজ এবং ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন শিল্পকলা একাডেমির নাট্যকলা ও চলচ্চিত্র বিভাগের পরিচালক সারা আরা মাহমুদ। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমির মহাপরিচালক ও পিটিএ’র প্রতিষ্ঠাতা লিয়াকত আলী লাকী। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের পূর্বে একটি বর্ণাঢ্য র‌্যালী সেগুনবাগিচা এলাকা প্রদক্ষিণ করে। এছাড়া অনুষ্ঠানমালায় ছিল অ্যাক্রোবেটিক শো, নৃত্য ও সঙ্গীত পরিবেশিত হয়।

উদ্বোধনী দিনে অনুষ্ঠিত হয়েছে ৫টি নাটকের প্রদর্শনী। জাতীয নাট্যশালায় প্রদর্শিত হয় জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয়ের থিয়েটার এন্ড পারফরমেন্স স্টাডিজ বিভাগের পরিবেশনায় ‘শ্যাম-রায় কীর্তন’, পরীক্ষণ থিয়েটার হলে নাট্যতীর্থ ঢাকার পরিবিশনায় ‘কঙ্কাল’, কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া কলেজ থিয়েটারের পরিবেশনায় ‘ঢ়াঁনমতির পালা’ এবং সঙ্গীত ও নৃত্যকলা কেন্দ্র মিলনায়তনে পরিবেশিত হয় ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা শিল্পকলা একাডেমির ‘পাদটিকা’ এবং শব্দ নাট্য চর্চাকেন্দ্র ঢাকার ‘ইনফরমার’।

উৎসবের দ্বিতীয় দিন দুটি হলে অনুষ্ঠিত হবে ৪টি নাটকের প্রদর্শনী। পরীক্ষণ থিয়েটার হলে নাট্যভূমি টঙ্গীর ‘মঞ্চেচিত্রে’ এবং চিন্তক থিয়েটার গোবিন্দগঞ্জের ‘বেহুলা’। পাশাপাশি সঙ্গীত ও নৃত্যকলা কেন্দ্র মিলনায়তনে রংপুর নাট্যকেন্দ্রের ‘মহুয়া প্রেমে’ এবং রঙ্গপীঠ ঢাকার ‘খেয়া পাড়ের মাঝি’। প্রদর্শনী শুরু হবে সন্ধ্যা সাড়ে ৬ টায়।

উল্লেখ্য, বিগত ২৬ বছর যাবত পিপলস থিয়েটার এসোসিয়েশন শিশু-কিশোর ও যুবনাট্য আন্দোলন পরিচালনা করে আসছে। বর্তমানে সারাদেশের ২৬২টি শিশু-কিশোর ও যুবনাট্য সংগঠন এই এসোসিয়েশনের অন্তর্ভুক্ত। ১৯৯৫ সাল থেকে জাতীয় শিশু-কিশোর নাট্যোৎসব ও যুব নাট্যোৎসব আয়োজন শুরু করে ইতোমধ্যে ৪টি যুব নাট্যোৎসব ও ১২টি শিশু-কিশোর নাট্যোৎসব আয়োজন সফলভাবে সম্পন্ন করে। দেশের শিশুনাট্য ও যুবনাট্য আন্দোলনকে বেগবান করার পাশাপাশি বাংলাদেশের সংস্কৃতি বিশেষ করে শিশু নাটককে আন্তর্জাতিক অঙ্গনে সুপ্রতিষ্ঠিত করার ক্ষেত্রে পিটিএ নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে। পিটিএভুক্ত দলগুলো জার্মানী, জাপান, কিউবা, তুরষ্ক, ভারতসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশের ৮৫টি আন্তর্জাতিক উৎসবে অংশগ্রহণ করেছে।