বিশেষ সংবাদ:

বিশ্ব সঙ্গীত দিবস আজ

Logoআপডেট: বৃহস্পতিবার, ২১ জুন, ২০১৮

এবি প্রতিবেদক

নানা কর্মসূচির মধ্য দিয়ে প্রতি বছরের মতো এবারো বাংলাদেশে পালিত হচ্ছে বিশ্ব সঙ্গীত দিবস। যথাযোগ্য মর্যাদায় দিবসটি পালনে বিভিন্ন সংগঠন ও প্রতিষ্ঠান নানা কর্মসূচি গ্রহণ করেছে। বাংলাদেশসহ পৃথিবীর ১০৮টি দেশে আজ এ দিবসটি পালন করা হচ্ছে। 

এই দিবসটি আন্তর্জাতিকভাবে পালনের শুরুটা হয় ফ্রান্সে। দেশটির একটি ঐতিহ্যবাহী সঙ্গীত উৎসবের নাম ‘ফেট ডে লা মিউজক’। এর বাংলা দাঁড়ায় বিশ্বব্যাপী সঙ্গীতের দিন। বিশেষ এই মিউজিক ফেস্টিভ্যালকে ঘিরে ফ্রান্সে পালিত হয় সঙ্গীতবিষয়ক বৈচিত্র্যময় নানা আয়োজন।

প্রথম থেকেই আলোচিত এই ফেস্টিভ্যালে অংশ নেয়ার জন্যে হাজির হতো বহু দেশের অসংখ্য সঙ্গীতজ্ঞ। ১৯৮২ সালেই বিশেষ এই সঙ্গীত উৎসবের দিনটি ‘ওয়ার্ল্ড মিউজিক ডে’ হিসেবে সমৃদ্ধি লাভ করে। এর এক বছর আগে অর্থাৎ ১৯৮১ সালে ফ্রান্সের সাংস্কৃতিক মন্ত্রী জ্যাক লাঙ এই উৎসবকে একটি আন্তর্জাতিক রূপ দেবার চেষ্টা করেছিলেন। আনুষ্ঠানিক যাত্রার এক বছরের মাথায় ২১ জুনকে বিশ্ব সঙ্গীত দিবস হিসেবে প্রতিষ্ঠা করা সম্ভব হয়।
ভালো লিরিক আর সুর ছুঁয়ে যায় সংবেদনশীল মানুষের মন। সঙ্গীতের নিজস্বতা আর স্বকীয়তা এতটাই প্রবল যে সেটা কোনো বিশেষ ভাষার কাছেও সীমাবদ্ধ হয়ে থাকেনি। অর্থাৎ কোনো কাঁটা তারের বেড়া সঙ্গীতকে বাধা দিতে পারে না। বিদেশের সঙ্গীতজ্ঞ বব ডিলান কিংবা জিম মরিসনের সঙ্গীত যেমন এদেশের মানুষের মন ছুঁয়েছে, তেমনি আমাদের লালনের গানও পৌঁছে গেছে বিশ্বের দরবারে।

বিশ্ব সঙ্গীত দিবসের আনন্দ আর উচ্ছ্বাস ছুঁয়ে চলে বিশ্বের একশত আট দেশের পাঁচ শতাধিক শহর-নগরে। কোটি কোটি মানুষ সঙ্গীতকে ভালোবেসে একটি বিশেষ দিবস হিসেবে ২১ জুনকে উদযাপন করে। এদিন বিশ্বজুড়ে আয়োজন করা হয় গানের আসর, শিল্পী সমাবেশ, শোভাযাত্রা, আলোচনা সভা, কর্মশালা ও নানামুখী সঙ্গীতবিষয়ক অনুষ্ঠানিকতা। অন্যান্য দেশের মতো বাংলাদেশেও নানা আয়োজনের মধ্য দিয়ে দিবসটি পালন করা হয়।

‘গান হতে হবে মুক্ত; সংশয়হীন’- এই স্লোগানকে সামনে রেখেই বিশ্বের ১১০টি দেশ যোগ দেয় এই আন্দোলনে। বিভিন্ন দেশে, স্থানীয়ভাবে অথবা ফরাসি দূতাবাসের সহায়তায় পালন করা হয় ‘ওয়ার্ল্ড মিউজিক ডে’। তেমনিভাবে বাংলাদেশেও এ দিবসটিকে গুরুত্বের সঙ্গে পালন করা হয়।

বিশ্ব সঙ্গীত দিবসকে ঘিরে শিল্পকলা একাডেমিসহ বিভিন্ন সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠন আজ বিভিন্ন অনুষ্ঠানের আয়োজন করে।এ উপলক্ষে আজ বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমি আলোচনা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান আয়োজন করেছে। সন্ধ্যায় বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমির জাতীয় নাট্যশালায় বর্ণাঢ্য সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে বিশ্ব সঙ্গীত দিবসের কর্মসূচির উদ্বোধন করবেন সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর এমপি।

উদ্বোধনী আয়োজনের পর জাতীয় নাট্যশালার লবিতে পিয়ানো বাজাবেন শিল্পী তিমির নন্দী এবং পাশাপাশি শিল্পীদের মিলনমেলায় অংশ নিবেন বিভিন্ন শ্রেণির শিল্পীবৃন্দ। জাতীয় নাট্যশালা মিলনায়তনে আলোচনাপর্বে বিশিষ্ট শিল্পী মোস্তফা জামান আব্বাসীর সভাপতিত্বে আলোচনায় অংশ নেবেন শিল্পী মমতাজ বেগম, এন্ড্রু কিশোর, গাজী আব্দুল হাকিম, আইয়ুব বাচ্চু, সুজিত মোস্তাফা ও রেজওয়ানা চৌধুরী বন্যা।
স্বাগত বক্তব্য প্রদান করবেন শিল্পকলা একাডেমির সঙ্গীত, নৃত্য ও আবৃত্তি বিভাগের পরিচালক মো. সোহরাব উদ্দিন। সাংস্কৃতিক পর্বে শিল্পী চন্দন দত্তের পরিচালনায় সমবেত যন্ত্রসঙ্গীত পরিবেশন করবে বাংলাদেশ যন্ত্রশিল্পী ফোরাম, একক বেহালা পরিবেশন করবেন- শিল্পী রূপসী মমতাজ, সমবেত সঙ্গীত পরিবেশন করবেন- বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমি ও বাংলাদেশ শিশু একাডেমির শিশু সঙ্গীত দল, শিশু একাডেমি ও সরকারি সঙ্গীত মহাবিদ্যালয়ের শিল্পীরা। ব্যান্ড সঙ্গীত পরিবেশন করবেন- জলের গান ও গান পাগল। অনুষ্ঠান উপস্থাপনায় থাকবে আনিকা ফারিহা।