বিশেষ সংবাদ:

৪ দিনের রিমান্ডে অভিনেত্রী নওশাবা

Logoআপডেট: রবিবার, ০৫ আগস্ট, ২০১৮

এবি প্রতিবেদক 
মডেল-অভিনেত্রী কাজী নওশাবা আহমেদের চার দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত। ঢাকা উত্তরা-পশ্চিম থানা পুলিশের ৭ দিনের রিমান্ড আবেদনের প্রেক্ষিতে রোববার দুপুরে ঢাকা মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট মাজহারুল হক এই আদেশ দেন। এর আগে তথ্যপ্রযুক্তি আইনে গ্রেপ্তার এ অভিনেত্রীকে দুপুরে উত্তরা পশ্চিম থানায় হস্তান্তর করে র‌্যাব।

এরপর নওশাবাকে আজ দুপুরে আদালতে হাজির করে ৭ দিনের রিমান্ড আবেদন করা হয়। এ সময় শুনানিতে নওশাবার আইনজীবী এ এইচ এম ইমরুল কাওসার বলেন, ‘নওশাবা ওই ঘটনায় তার ভুল স্বীকার করে ফেইসবুকেই দুঃখ প্রকাশ করেছেন। কোনো উসকানির উদ্দেশ্য তার ছিল না।’
এর বিরোধিতা করে আদালত পুলিশের সংশ্লিষ্ট সাধারণ নিবন্ধন কমকর্তা এসআই রফিকুল ইসলাম বলেন, ‘উস্কানিমূলক ওই ঘটনায় আর করা জড়িত, কার নির্দেশে সে এমন বিভ্রান্তকর পোস্ট দিয়েছিল তা জানা এবং তার মোবাইল ফোন উদ্ধারের জন্য রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ প্রয়োজন।’

নিরাপদ সড়কের দাবিতে শিক্ষার্থীদের আন্দোলনে রাজধানীর ঝিগাতলায় খুন, ধর্ষণ ও চোখ উপড়ে ফেলা হয়েছে বলে ফেসবুক লাইভে এসে গুজব ছড়িয়ে সবাইকে বিভ্রান্ত করার অভিযোগে গতকাল উত্তরা থেকে আটক করে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী।

আটকের পর প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে গুজব ছড়ানোর বিষয়টি স্বীকার করেছে বলে জানিয়েছেন র‌্যাবের আইন ও গণমাধ্যম বিভাগের পরিচালক কমান্ডার মুফতি মাহমুদ খান। গতকাল শনিবার রাজধানীর উত্তরা এলাকা থেকে নওশাবাকে আটক করে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব)। পরে তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করার জন্য র‌্যাব-১ এর কার্যালয়ে নেয়া হয়।
এদিকে, শিক্ষার্থীদের আন্দোলন নিয়ে ফেসবুকে গুজব ছড়ানোর অভিযোগে আজ ৫ আগস্ট রোববার অভিনেত্রী কাজী নওশাবা আহমেদের বিরুদ্ধে তথ্য প্রযুক্তি আইনে উত্তরা মডেল থানায় এ মামলাটি (মামলা নং ৮) দায়ের করে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব-১)। এ মামলায় নওশাবাকে গ্রেফতার দেখানো হয়েছে।

প্রসঙ্গত, শনিবার দুপুরে ফেসবুক লাইভে এসে কাজী নওশাবা বলেন, ‘ঝিগাতলায় আমাদের ছোট ভাইদের (শিক্ষার্থীদের ঈঙ্গিত করে) একজনের চোখ তুলে ফেলা ও দুইজনকে মেরে ফেলা হয়েছে। একটু আগে ওদেরকে অ্যাটাক করা হয়েছে। প্লিজ-প্লিজ ওদেরকে বাঁচান। তারা ঝিগাতলায় আছে। আপনারা এখনই রাস্তায় নামবেন ও আপনাদের বাচ্চাদের নিরাপদ জায়গায় নিয়ে যাবেন, এটা আমার রিকোয়েস্ট।
বাচ্চাগুলো নিরাপত্তাহীনতায় আছে। যে পুলিশরা আছেন আপনারা অবশ্যই নিজেদের বাচ্চাদের প্রোটেকশন দেন। আপনারা প্লিজ কিছু একটা করেন। আপনারা সবাই একসাথে হন। আমি এ দেশের মানুষ, এ দেশের নাগরিক হিসেবে আপনাদের কাছে রিকোয়েস্ট করছি।’