বিশেষ সংবাদ:

নিরাপদ সড়কের দাবিতে শিক্ষার্থীদের সঙ্গে রাজপথে তারকারা

Logoআপডেট: বৃহস্পতিবার, ০২ আগস্ট, ২০১৮

এবি প্রতিবেদক 
রাজধানীর শাহবাগ, উত্তরা, রামপুরা ও বাংলামোটর এলাকায় আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের সঙ্গে অবস্থান করছেন বিনোদন মিডিয়ার তারকারা। বিমানবন্দর সড়কে বাসচাপায় নিহত দুই ছাত্রের খুনিদের অবিলম্বে বিচার চাওয়া আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের সঙ্গে একাত্মতা প্রকাশ করে নিরাপদ সড়কের দাবিতে রাজপথে নেমেছেন তারা।

এত দিন তারকারা ফেসবুকে পোস্ট দিয়ে সমর্থন জানালেও অনেকেই এখন সশরীরে রাস্তায় নেমেছেন। শিক্ষার্থীদের আন্দোলনে সমর্থন জানিয়ে আজ বৃহস্পতিবার শুটিং বন্ধ করে ঢাকার বিভিন্ন সড়কে নেমেছেন সংগীত ও অভিনয়জগতের বহু তারকা। রয়েছেন প্রযোজক-পরিচালকেরাও।

যেখানে ঈদের আগে অন্য সময়ের চেয়ে অনেক বেশি ব্যস্ত থাকতে হয় সংগীতশিল্পী, নির্মাতা ও অভিনয়শিল্পীদের। রীতিমত দম ফেলার সময় থাকে না। এতো ব্যস্ততার পরও শুটিং বন্ধ রেখে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের সঙ্গে একাত্মতা প্রকাশ করে রাজপথে নেমেছেন অভিনয়শিল্পী সংঘ, ডিরেক্টর গিল্ডস-সহ বিনোদন মিডিয়ার বিভিন্ন সংগঠনের শিল্পীরা। নির্মাতা চয়নিকা চৌধুরী, সকাল আহমেদ, নাট্যকার আহসান আলমগীর, অভিনয়শিল্পী লুৎফর রহমান জর্জ, মুনিরা মিঠু, জাকিয়া বারী মম, নাদিয়া আহমেদ, জ্যোতিকা জ্যোতি, নওশাবা, নওশীন, অর্ষা, তৌসিফ, নাবিলা, সঙ্গীতশিল্পী পুলক প্রমুখ।

এ বিষয়ে নির্মাতা এস এ হক অলীক বলেন, ‘টেলিভিশনে আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীদের কষ্ট দেখে নিজেকে নিয়ন্ত্রণ করতে পারিনি। শিক্ষার্থীদের সঙ্গে একাত্ম হয়ে রাজপথে নেমেছি। আন্দোলন করা শিক্ষার্থীরা যৌক্তিক দাবী নিয়ে শান্তিপূর্ণ আন্দোলন করছে। আমাদের সবার উচিত তাদেরকে সমর্থন দেয়া।’

অভিনয় শিল্পী সংঘের সাংগঠনিক সম্পাদক লুৎফর রহমান জর্জ বলেন, ‘রাস্তায় গাড়িগুলো খুব বেপরোয়া চলে। পুরো রাজধানী জুড়ে ফিটনেসহীন অসংখ্য গাড়ি, লাইসেন্সহীন অদক্ষ ড্রাইভাররা বেপরোয়া হয়ে এসব গাড়ি চালাচ্ছে। এতে করে প্রতিনিয়ত দুর্ঘটনা ঘটছে। ফলে সাধারণ মানুষের স্বাভাবিক জীবনযাপন হুমকির মুখে পতিত হচ্ছে। এসবের একটা প্রতিকার হওয়া দরকার। তাই শিক্ষার্থীদের নৈতিক এই দাবীর সমর্থনে এবং নিরাপদ সড়কের জন্য শিল্পীসমাজ রাজপথে নেমেছে।’

নির্মাতা চয়নিকা চৌধুরী বলেন, ‘অধিকাংশ সময় আমাদেরকে শুটিং নিয়ে ব্যস্ত থাকতে হয়। শিল্পী হলেও আমরাও কিন্তু মানুষ। নিরাপত্তার বিষয় আছে, আমাদেরও সন্তান আছে, সংসার আছে। আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীরা তো আমাদেরই কারো না কারো সন্তান কিংবা ছোট ভাই-বোন। রাস্তায় এমন পরিস্থিতি তৈরি হয়েছে যে, ছাত্র সমাজ রাস্তায় নামতে বাধ্য হয়েছে। তাদের এমন যৌক্তিক আন্দোলনের সঙ্গে আমাদের থাকা উচিত বলে মনে করছি। তাই শুটিং থেকে সবাই মিলে এই আন্দোলনে সম্মিলিত হয়েছি।’

অভিনেত্রী নাদিয়া বলেন, ‘শিক্ষার্থীরা নৈতিক ও যৌক্তিক আন্দোলনে নেমেছে। তারা দাবি আদায় করেই ছাড়বে। এটি একেবারেই সাধারণ বাচ্চাদের আন্দোলন। এই আন্দোলনের মধ্য দিয়ে সবার মাঝে সচেতনতা জেগে উঠুক। ‘

প্রসঙ্গত, ২৯ জুলাই ঢাকার কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতালের অদূরে বিমানবন্দর সড়কে রেডিসন হোটেলের উল্টো দিকে বাসচাপায় রমিজ উদ্দিন ক্যান্টনমেন্ট কলেজের দুই শিক্ষার্থী নিহত হয়। এমন অনাকাঙ্ক্ষিত মৃত্যু আর পরিবহন ব্যবস্থায় অনিয়ম নিয়ে এখন শহরজুড়ে চলছে শিক্ষার্থীদের আন্দোলন। আজও ঢাকার প্রায় প্রতিটি গুরুত্বপূর্ণ রাস্তা দখল করে রেখেছে শিক্ষার্থীরা। প্রতিটি গাড়িতে চেক করা হচ্ছে ড্রাইভিং লাইসেন্স এবং গাড়ির প্রয়োজনীয় কাগজ-পত্র। যথাযথ কাগজপত্র না থাকলে নিয়ে নেয়া হচ্ছে গাড়ির চাবি।